মেনু নির্বাচন করুন

ঐতিহাসিক যোগীর ভবনের মন্দির

ঐতিহাসিক যোগীর ভবনের মন্দির

কিভাবে যাওয়া যায়: 
বগুড়া কেন্দ্রীয় বাসষ্ট্যান্ড থেকে বাসযোগে দররগাহাট বাজার সেখান থেকে রিক্সা বা সিএনজি যোগে পাইকড়র ইউনিয়ন পরিষদ

কাহালু উপজেলা সদর থেকে প্রায় ১৫ কিঃমিঃ উত্তরে পাইকড় ইউনিয়ন পরিষদের পাশে ঐতিহাসিক যোগীর ভবন অবস্থিত। এখানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের যোগী ও সাধু-সন্নাসীদের আনা-গোনা ছিল বলে এ স্থানটির নামকরণ ‘‘যোগীর ভবন’’ বলে স্থানীয়ভাবে জানা যায়। এখানে রয়েছে একটি আশ্রম, ০৪ টি মন্দির, কানচ কূপ, একটি ইঁদারা, ধর্মটঙ্গী এবং অগ্নিকুন্ড ঘর। যোগীর ভবনের আশ্রম ও মন্দির নির্মানের তেমন কোন তথ্য পাওয়া না গেলেও এখানে বিভিন্ন দেয়ালের গায়ে ৮৮৪, ১১১৩, ১১১৯ খৃষ্টাব্দ লেখা রয়েছে যা থেকে অনুমান করা যায় যে, এটি ৮৮৪ সালে নির্মিত হয়েছিল। ১১১৩, ১১১৯ খৃষ্টাব্দে এটির সম্ভবতঃ সংস্কার করা হয়েছিল। জনশ্রুতিতে আরোও জানা যায় বাংলার কিংবদন্তী নায়িকা বেহুলার মৃত স্বামী লক্ষ্ণীন্দর এখানকার কানচ কূপের পানির মাধ্যমে জীবন ফিরে পেয়ে ছিলেন। যোগীর ভবন মন্দিরে হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ পূজা-পার্বণ করে থাকেন। সংস্কারের অভাবে এখন এটি ধবংসের পথে।

কিভাবে যাওয়া যায়:

বগুড়া কেন্দ্রীয় বাসষ্ট্যান্ড থেকে বাসযোগে দররগাহাট বাজার সেখান থেকে রিক্সা বা সিএনজি যোগে পাইকড়র ইউনিয়ন পরিষদ


Share with :

Facebook Twitter